TOP সোশ্যাল

ফাঁসির সাজা ঘোষনার পর বিচারক পেনের নিব ভেঙে দেন কেন ?? জানুন অবাক হবেন।

Loading...

সিনেমাতে আপনি প্রায় দেখেছেন যে আদালতে বিচারক ফাঁসির রায় দেওয়ার পরেই হাতের কলমের নিব ভেঙে ফেলনেন। এমনকি আপনি খোদ আদালতে গেলেই এই ব্যাপারটি লক্ষ্য করবেন। আচ্ছা একটু ভেবে দেখুন তো, একজন বিচারক মৃত্যু দন্ডের সাজা ঘোষনা করার পর তার হাতে থাকা কলমের নিব ভাঙতে যাবেন কেনো ! এর পিছনে নিশ্চই কোনো কারন আছে। তাহলে জেনে নিন –

ভারতবর্ষের আইন অনুযায়ী অপরাধের সর্বোচ্চ সাজা হলো মৃত্যুদন্ড অর্থাৎ ফাঁসি। খুন সহ আরও বিশেষ কিছু অপরাধের ক্ষেত্রে অপরাধীকে মৃত্যুদন্ড দেওয়া যেতে পারে। ফাঁসির অর্থ হলো মৃত্যু অবধি সাজা প্রাপ্ত অপরাধীকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে রাখা। তবে এটা উল্লেখ্য যে আদালত ফাঁসির সাজা বিরল হতে বিরলতর অপরাধের ক্ষেত্রে প্রদান করে। কারন মৃত্যুদন্ড মানেই একজন মানুষের প্রাণ হরনের সমান।

সুতরাং বিচারক আসামীর বিরুদ্ধে সকল শক্ত সাক্ষ্য প্রমানাদি,পারিপার্শিক অবস্থা ও বিচারকের নিজস্ব বিশ্লেষন ও আইনি ও স্বীয় বিচক্ষনতা এবং সিদ্ধান্তের উপর সামগ্রিক মূল্যায়ন করেই ফাঁসির সাজা ঘোষনা করেন। সিনেমায় যত সহজে ব্যাপারগুলিকে প্রদর্শন করা হয় তা কিন্তু নয়।

why-judges-always-break-the-nibs-of-their-pens-after-sentencing-someone-to-death_serfzn ফাঁসির সাজা ঘোষনার পর বিচারক পেনের নিব ভেঙে দেন কেন ?? জানুন অবাক হবেন।

বিচারক ফাঁসির সাজাটা একটি কলমের দ্বারা লিখে ঘোষনা করেন। ফাঁসির সাজা ঘোষনাকালে এটাই অনুধাবন করা হয় যে এই সাজা উক্ত অপরাধীর প্রাণ তার কৃত অপরাধের শাস্তিস্বরূপ কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। বিচারকের বিচার এখানেই প্রতিস্থাপিত এবং তা ফিরিয়ে নেওয়ার যোগ্য নয়। তাই এই ফাঁসির সাজা ঘোষনার পরেই কলমের নিব ভেঙে ফেলেন রায় দানকারী বিচারক।

মৃত্যুদন্ড অত্যন্ত কঠোরতম সাজা যা বিরল কিছু ক্ষেত্রে দেওয়া হয়। পেনের নিব ভেঙে বিচারক এটাই বোঝাতে চান,যে এই সাজা আর ফিরানো যাবে না। বিচারকের তখন আর কোনো ক্ষমতা থাকে না তার বিচারকে পরিবর্তন করবার। তিনি পুনরায় অন্য কিছু ভেবেই তার দেওয়া ফাঁসির সাজা বদলাতে পারেন না। এটা তাঁর আইনী এক্তিয়ারের বাইরে। তাই পেনের নিব ভাঙার মধ্যে দিয়ে বিচারকের সিদ্ধান্তকে অপরিবর্তনীয় হিসেবে বোঝানো হয়। কলমের নিব ভাঙাবার এই প্রচলনটা ব্রিটিশ আমল থেকেই চলে আসছে।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন:

 

Loading...

Comments

comments