TOP নিউজ

খুব দ্রুতই ভারতের মানচিত্র থেকে মুছে যেতে পারে লাক্ষাদ্বীপ!

Loading...

উপকূলীয় ক্ষয়ের কারণে কী সমুদ্রগর্ভে হারিয়ে যাবে লাক্ষাদ্বীপ? এমনই আশঙ্কার কথা শোনালেন বিজ্ঞানীরা। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, উপকূলে প্রবল ক্ষয়ের কারণে ইতিমধ্যেই সমুদ্রগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে পারালী ১ নামে একটি দ্বীপ। আরও চারটি দ্বীপও যেকোনও সময়ে সমুদ্রগর্ভে তলিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা।

বঙ্গোপসাগরে উপর বেশ কয়েকটি প্রবাল দ্বীপ ও প্রবাল প্রাচীরে নিয়ে তৈরি এই লাক্ষাদ্বীপ। কেন্দ্রশাসিত এই অঞ্চলে সবকটি দ্বীপে অবশ্য জনবসতি নেই। তবে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ও জীববৈচিত্র্যের কারণে লাক্ষাদ্বীপ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতি নিয়ে লাক্ষাদ্বীপের অন্তর্গত কয়েকটি দ্বীপে যেতে পারেন পর্যটকরা। কিন্তু, উপকূলবর্তী এলাকায় প্রবল ক্ষয়ের কারণে এখনকার প্রবাল দ্বীপ ও প্রবাল প্রাচীরগুলির অস্তিত্ব সংকটে। সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বানগারাম প্রবালদ্বীপ মালার অন্তর্গত পারালি ১ দ্বীপটি ইতিমধ্যেই সমুদ্রগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে। আর চার দ্বীপের অবস্থাও ভাল নয়।বিজ্ঞানীরা বলছেন, লাক্ষাদ্বীপে উপকূলীয় ভাঙন যদি রোধ না করা যায়, তাহলে ওই চারটিও দ্বীপও সমুদ্র গর্ভে তলিয়ে যাবে।

কিন্তু, লাক্ষাদ্বীপে এই ভয়াবহ উপকুলীয় ক্ষয়ের কথা  কীভাবে জানা গেল? লাক্ষাদ্বীপে উপকূলীয় ক্ষয় ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ নিয়ে গবেষণা চালিয়েছেন আর এম হায়াতুল্লা নামে এক বিজ্ঞানী। গত জুলাই মাসে আদলে লাক্ষাদ্বীপেরই বাসিন্দা হায়াতুল্লাকে পিএইচডি ডিগ্রি দিয়েছে ওড়িশার কালিকট বিশ্ববিদ্যালয়। তাঁর গবেষণাতেই লাক্ষাদ্বীপে এই ভয়াবহ উপকূলীয় ক্ষরে বিষয়টি সামনে এসেছে। মূলত বনগরম, তিন্নাকার-সহ লাক্ষাদ্বীপে জনবসতিহীন দ্বীপগুলির জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ নিয়ে গবেষণা চালিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন:

ভার্জিনিটি বিক্রির জন্য বিজ্ঞাপন দিলেন এই ১৮ বছরের ছাত্রী!

এবার দু’লক্ষ ভুয়ো সংস্থার অ্যাকাউন্ট বন্ধের নির্দেশ মোদি সরকারের

Loading...

Comments

comments