TOP নিউজ সোশ্যাল

সেক্স-সিটি! ভারতের সাইবার সিটিতে দিনে দিনে বাড়ছে সেক্স র‍্যাকেট

Loading...

ভারতের সাইবার সিটিতে বাড়ছে সেক্স র‍্যাকেট৷ একের পর এক সেক্স র‍্যাকেটের মামলা সামনে আসছে পুলিশের৷ গত সপ্তাহে সন্ধান পাওয়া সাইবার সিটির সেক্স র‍্যাকেটের মামলা চলাকালীন রবিবার রাতে একটা বড়সড় মধুচক্রের সন্ধান পেল পুলিশ প্রশাসন৷শহরের এই বেড়ে চলা সেক্স র‍্যাকেট সামনে চলে আসায় রীতিমতো তাজ্জব পুলিশ আধিকারিকরা৷ কিন্তু কীভাবে পুলিশ সাইবার সেক্স র‍্যাকেট ভেঙে গুড়িয়ে দিচ্ছে?

হরিয়ানার গুরগাঁও ভারতের সাইবার সিটি বলেই পরিচিত৷ এই সাইবার সিটিতে ইন্টারনেটের মতোই বিদ্যুতের গতিতে বাড়ছে মধুচক্র৷ রীতিমতো সক্রিয় সেক্স র‍্যাকেট৷ রবিবার এমনই একটা বড়সড় চক্রের ভাণ্ডাফোঁড় করে দিন পুলিশ৷ গুড়গাঁওয়ের ডিএলএফ এলাকায় পুলিশ এই সেক্স র‍্যাকেটের সন্ধান পায়৷ তার পরেই গুড়িয়ে দেওয়া হয় চক্রটিকে৷ গ্রেফতার করা হয়েছে পাঁচ মহিলাসহ দুই যুবককে৷

গোপন সুত্রে পুলিশ খবর পেয়েছিল, মেক্স হাসপাতালের আশপাশে কোথাও গত কয়েকমাস ধরে একটি বড়সড় সেক্স র‍্যাকেট বেশ সক্রিয়৷ রবিবার  সেক্টর-২৯ থানার পুলিশের একটা বড় দল ওই এলাকায় হানা দেয়৷ এই চক্রকে পাকড়াও করতে এক পুলিশ কর্মী সেখানে গিয়েছিলেন গ্রাহক সেজে৷ তারপরই চক্রটি জালে তোলে গুড়গাঁওয়ের পুলিশ৷

কীভাবে জালে তোলা হল এই চক্রটিকে?

এক পুলিশ কর্মী গ্রাহক সেজে ওই চক্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে৷ শর্ত পাকা করে পুলিশ কর্মীকে গোটা টিমকে সংকেত দেন৷ এর পরই সেখানে পুলিশ হানা দেয়৷ তখনই পাঁচ মহিলা এবং দুই যুবককে জালে তোলে পুলিশ৷ গুরগাঁও পুলিশ জানাচ্ছে, গ্রেফতার হওয়া পাঁচ মহিলা দিল্লির ছাবলা এলাকার বাসিন্দা৷ এরা মূলত জাতীয় সড়কের ধারে দাঁড়িয়ে থেকে গ্রাহক ধরে রোজগার করত৷ ধৃত দুই যুবক আসারাম এবং সুনীল এই ব্যবসায় মূলত দালালির কাজ করত৷  বিভিন্ন এলাকা থেকে মেয়ে জোগার করে ওই ডেরায়য় পৌঁছে দিত আসারাম এবং সুনীল৷

কীভাবে সাইবার সিটিতে চলছে সেক্স রাকেট?

ডিএলএফের  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দলবীর সিং বলছেন, সাইবার সিটিতে বেশ কিছুদিন ধরেই মধুচক্রের ব্যবসা রমারমা হয়ে উঠছিল৷ এই চক্রগুলি ভাঙতে পুলিশও সচেষ্টা হয়৷ এর জন্য একটা নীল-নকশা তৈরি করা হয়৷ শুরু হয় লাগাতর অভিযান৷ মাস দুই আগে ডিএলএফ এলাকায় একটা বড়সড় মধুচক্র ব্যবসা ভেঙে গুড়িয়ে দিতে পারা গিয়েছিল৷ তিনি জানাচ্ছেন, পুলিশের এই লাগাতর অভিযানেও বন্ধ করা যাচ্ছিল না মধুচক্রের ব্যবসা৷ গত দুই মাসে বেশ কয়েকটি বড়সড়  আসর ভাঙতে পারা গিয়েছিল৷ তিনি বলছেন, পুলিশ এই অভিযান চলতেই থাকবে৷

 আরও পড়ুন:

Loading...

Comments

comments