TOP নিউজ সোশ্যাল

গীতার বাণী সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার কাজে ব্রতী হয়েছেন অসমের এই তাঁতশিল্পী

Loading...

রাজনীতির মঞ্চেও যখন ধর্ম নিয়ে একে অপরের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে শাসক ও বিরোধীপক্ষ, তখন গীতার বাণী সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার কাজে ব্রতী হয়েছেন অসমের এক তাঁতশিল্পী। কাঁথার উপর সেলাই করে ইংরাজি ও সংস্কৃতি ভাষায় ভাগবৎ গীতা ফুটিয়ে তুলছেন তিনি। গত এক বছর ধরে এই কাজ করছেন হেমপ্রভা নামে ওই মহিলা তাঁতশিল্পী।

ধর্মগ্রন্থ বলা যাবে না। তবে হিন্দুদের কাছে গীতার গুরুত্ব অপরিসীম। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে অর্জুনের রথের সারথী ছিলেন স্বয়ং শ্রীকৃষ্ণ। যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়ার পথে, জীবন দর্শন নিয়ে পাণ্ডবশ্রেষ্ঠকে নানা পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। সেই কথোপকথনই বিভিন্ন স্ত্রোত্রের আকার লিপিবদ্ধ করা আছে গীতায়। হিন্দু সমাজে শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে গীতা দেওয়ার চল আছে। অনেকে আবার মৃতদেহের উপরও গীতা রাখেন। কিন্তু, আদিযুগে গীতা সংস্কৃতকে লেখা হয়েছিল। ভাষাগত সমস্যার কারণে অনেকেই গীতা পড়তে পারেন না। আর নিজের শিল্পের মাধ্যমে সেই সমস্যা দুর করার কাজে ব্রতী হয়েছেন অসমের তাঁতশিল্পী হেমপ্রভা। কীভাবে? গত এক বছর ধরে কাঁথার উপর সেলাই করে সংস্কৃত ও হিন্দিতে গীতার বাণী ফুটিয়ে তুলছেন তিনি। ইতিমধ্যেই সংস্কৃততে গীতার ৫০০টি শ্লোক ও ইংরাজিতে আস্ত একটি অধ্যায় বুনে ফেলেছেন হেমপ্রভা। তিনি বলেন, ‘প্রায় নয় মাসের চেষ্টায় কাপড়ের উপর গুণমালা সেলাই করেছিলাম। আমার কাজ গোটা রাজ্যে প্রশংসা পেয়েছিল। এখন আমি কাঁথার উপর হিন্দি ও ইংরাজিতে গীতা ফুটিয়ে তুলছি।’

GITA2_WEB-1024x576 গীতার বাণী সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার কাজে ব্রতী হয়েছেন অসমের এই তাঁতশিল্পী

হেমপ্রভার হাতে বোনা সেই সিল্কের কাঁথায় শংকরদেব গুণমালার সতেরোটি অনুচ্ছেদ ছিল। আর এবার কাঁথায় উপরে পুরো গীতাটাই ফুটিয়ে তুলতে চাইছেন তিনি। হেমপ্রভা চান, তাঁর শিল্পকর্ম মিউজিয়ামে সংরক্ষণ করা হোক। যাতে সকলে তা দেখতে পারে। ইতিমধ্যেই অসম সরকারের কাছে মিউজিয়াম তৈরি করার আরজি জানিয়েছেন তিনি।

সূত্র ঃ সংবাদপ্রতিদিন

আরও পড়ুন 

সংযুক্ত আরব আমিরশাহি সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য রইল আপনার জন্য

নাচের লাস্যে নেটদুনিয়ার মন জয় করলেন দুই ‘দঙ্গল’ কন্যা

পাকিস্তানকে চমকে দিতে এবার নয়া কৌশল ভারতীয় সেনার

কিংসলের গোলে মরশুমের প্রথম ডার্বির রং সবুজ-মেরুন

Loading...

Comments

comments