এবার টেস্টেও মাস্টার ব্লাস্টারের রেকর্ড ভাঙলেন বিরাট কোহলি

Loading...

২৩ বছরের গাঁট কাটিয়ে ২০১৫-তে শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজ জিতেছিল বিরাট কোহলির টিম ইন্ডিয়া। কিন্তু গলে জয় অধরাই থেকে গিয়েছিল। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে গল বরাবর শক্তিশালী দুর্গ। তাই এবার বিরাটদের লক্ষ্য ছিল গলের বাইশ গজে লঙ্কাবধ। তৃতীয় দিনের শেষে সেই পথে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে ভারত। সেই সঙ্গে শুক্রবার নয়া রেকর্ডও গড়ে ফেললেন জয়ের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা টিম ইন্ডিয়ার ক্যাপ্টেন।

প্রথম ইনিংসে মুখ থুবড়ে পড়েছিলেন। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে শক্ত হাতেই ব্যাট ধরেছেন অধিনায়ক। আর তৃতীয় দিনের শেষে তাই শচীন তেণ্ডুলকরের রেকর্ডও ভেঙে দিলেন তিনি। কী সেই রেকর্ড? বিদেশের মাটিতে দ্রুততম ভারতীয় হিসেবে এক হাজার রান করার নজির গড়লেন কোহলি। এদিন ৭৬ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। টেস্টে ১৫ তম হাফসেঞ্চুরি করেই মাস্টার ব্লাস্টারকে টপকে গেলেন তিনি। এর আগে বিদেশের মাটিতে ১৯টি ইনিংস খেলে এক হাজার রান পকেটে ভরেছিলেন শচীন। বিরাট সেই কৃতিত্ব করে ফেললেন ১৭টি ইনিংস খেলেই।

চলতি মাসেই ওয়ানডে-তে ক্রিকেট ঈশ্বরকে পিছনে ফেলে দিয়েছিলেন ভারত অধিনায়ক। রান তাড়া করে সর্বাধিক সেঞ্চুরি করার নিরিখে এগিয়ে যান বিরাট। জামাইকায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সেই নজির গড়েন তিনি। শচীন যেখানে ২৩২টি ইনিংসে রান তাড়া করে ১৭টি শতরান করেছিলেন সেখানে ১০২টি ইনিংস খেলে তাঁকে ছাপিয়ে যান বিরাট (১৮)।

তবে রেকর্ড গড়ার দিনও বিশেষজ্ঞদের সমালোচনার মুখে পড়তে হল বিরাটকে। প্রশ্ন উঠছে, কেন ৩০৯ রানের লিড থাকা সত্ত্বেও শ্রীলঙ্কাকে ফলো-অন করানোর কথা ভাবলেন না তিনি? ধারে ও ভারে অনেকটাই এগিয়ে থাকা দল নিয়েও কেন এই সাহস দেখাতে পারলেন না? ২০১৪ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনির থেকে নেতৃত্ব নিয়েছিলেন নিজের কাঁধে। তারপর থেকে সাতবার বিপক্ষকে ফলো-অন খাওয়ানোর সুযোগ এসেছিল। যার মধ্যে পাঁচবারই সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি তিনি। তবে প্রথম টেস্ট জিতেই সমালোচনায় ইতি টানতে চান কোহলি।

সবচেয়ে জনপ্রিয় খবরগুলো:

Loading...

Comments

comments